থাইরয়েড কি ? কি কারনে থাইরয়েড হতে পারে এবং প্রতিরোধের প্রতিক্রিয়াগুলো

থাইরয়েড কি ?

থাইরয়েড আমাদের শরীরের একটি গ্রন্থির নাম।এটি থাকে আমাদের গলার স্বরযন্ত্রের দুই পাশে।দেখতে প্রজাপতির ডানার মত।আর এর রঙ টা হল বাদামী।এই গ্রন্থির কাজ হল আমাদের শরীরের কিছু অত্যাবশ্যকীয় হরমন উৎপাদন করা। যদি কোন কারনে এই গ্রন্থির হরমোন নিঃসরণে কোন প্রকার বাতিক্রম হয় তখন তাকে থাইরয়েড রোগ(সাধারনত Hypothyroidism, তবে hyperthyroidism ও goiter ও হতে পারে ) বলে। এই গ্রন্থি থাইরয়েড হরমোন তৈরীর জন্য দায়ী। প্রথমে ব্রেনের হাইপোথালামাস থেকে টি.আর.এইচ নামে একটি হরমোন তৈরী হয়। টি.আর.এইচ তারপর পিটুইটারি নামের অন্য একটি গ্রন্থি কে উদ্দিপীত করলে পিটুইটারি গ্ল্যান্ড থেকে টিএস এইচ নামে একটি হরমোন তৈরী হয়। এই হরমোন আবার থাইরয়েড গ্রন্থিকে উদ্দীপিত করলে, খাবার থেকে প্রাপ্ত আয়োডিন কে ব্যবহার করে থাইরয়েড হরমোন তৈরী হয়। থাইরয়েড হরমোন দুই প্রকার-T3(০.১%) এবংটি৪(৯৯.৯%), এই হরমোন দুটি আমাদের শরীরের অনেক গুরত্বপূর্ণ কার্যাবলী সম্পাদনে ভূমিকা রাখে। হাইপোথালামাস, পিটুইটারি ও থাইরয়েড গ্রন্থি এই তিনটার যে কোন একটাতে সমস্যা থাকলেই, শরীরে থাইরয়েড হরমোন এর পরিমাণে বেশকম হয়ে যাবে।

থাইরয়েড কি
থাইরয়েড কি

কি কি কারনে থাইরয়েড হতে পারে এবং প্রতিরোধের উপায় গুলো আজকে আলোচনা করা হল

1.থাইরয়েডের প্রথম কারণ হল অতিরিক্ত হতাশা এবং এক ধরনের stress অনুভব
2. থাইরয়েডের দ্বিতীয় কারণ হলো প্রতিদিন রাতে আট থেকে দশ ঘণ্টা ঘুমানোর পরও ঘুমানোর জন্য ইচ্ছা জাগে
3.থাইরয়েডের তৃতীয় লক্ষণ হচ্ছে low sex drive এবং অনিয়মিত পিরিয়ড

4.থাইরয়েডের ৪র্থ কারন হচ্ছি মাসল পেইন এবং পুরনো কোনো ইনজুরির আঘাত না সাড়া
5.পঞ্চম কারণটি হল শরীরে ঠান্ডা অনুভব করা অন্য কেউ ঠান্ডা অনুভব না করলেও নিজের শরীরের তাপমাত্রা কমে যাওয়া হাত পা ঠান্ডা হয়ে আসা এবং কোন কোন ক্ষেত্রে শরীরের তাপমাত্রা 98.5 degree নিচে নেমে আসে
6.ষষ্ঠ কারণ  শুষ্ক ত্বক আঙ্গুলের এর ফাটল এবং অনেক বেশি চুল পড়া

7.কোষ্ঠকাঠিন্য
8.হঠাৎ করে ওজন বেড়ে যাওয়া কিংবা অনেক চেষ্টা করেও ওজন কমাতে না পারার একটা কারণ কিন্তু হতে পারে হাইপোথাইরয়ডিজম।

থাইরয়েড
                  থাইরয়েড

 

এখন আমরা থাইরয়েডের  প্রতিরোধমূলক উপায় নিয়ে আলোচনা করব

1.প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন বি এবং ভিটামিন D খেতে হয়
2.আপনার স্ট্রেস কে কমাতে হবে
3.স্ট্রেস কমানোর জন্য আপনি ইয়োগা ব্যায়াম করতে পারেন
4.প্রতিদিন রাতে আট থেকে দশ ঘন্টা  ঘুম চেষ্টা করুন
5.ভাল কোন ডেন্টিস্টের কাছে গিয়ে এমালগাম টেস্ট করুন
6.আপনার দৈনন্দিন খাদ্যাভাসে ফ্লোরাইড ক্লোরাইড এবং ক্লোরিন সংগ্রহ করুন
7.আপনার নিকটস্থ কোনো ভালো কনো ডাক্তার থাইরয়েড বিশেষজ্ঞের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করুন

 

, ,
nahida

About nahida

আমি নাহিদা ইসলাম। আমি একজন শখের রাঁধুনি। ছোট বেলা থেকেই রান্নার প্রতি আমার অনেক আগ্রহ ছিল। ছোট থেকেই মায়ের কাছ থেকে রান্না শিখেছি। সেই সাথে বিভিন্ন বই, টিভি অনুষ্ঠান, ম্যাগাজিন থেকে অনেক রকমের রান্না আমি শিখেছি। এছাড়া আমার নিজের বানানো বেশ কিছু রান্নার টিপস রয়েছে যা আমি নিয়মিত আমার এই রান্না বিষয়ক ব্লগ সাইটে প্রকাশ করবো। আমি রান্নার পাশাপাশি, রুপচর্চা এবং ঘরের সকল ধরনের কাজের টিপস এই ব্লগে প্রকাশ করবো। যে কোন মজাদার রান্না, বিউটি টিপস জানতে চাইলে আমার ব্লগ সাবস্ক্রাইব করুন। সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।
View all posts by nahida →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *